Recents in Beach

Google Play App

সিদ্ধিরগঞ্জে একই পরিবারের পাঁচ সদস্য ৬ দিন ধরে নিখোঁজ

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের একটি বাসা থেকে জামাল সরদার নামে এক গার্মেন্টস কর্মকর্তার স্ত্রী ও সন্তানসহ পরিবারের পাঁচ সদস্য ৬ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। সিদ্ধিরগঞ্জের পূর্ব নিমাইকাশারী মাদানীনগর নুরবাগ এলাকার বাসা থেকে তারা নিখোঁজ হন বলে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।
নিখোঁজরা হলেন, গার্মেন্টস কর্মকর্তা জামাল সরদারের স্ত্রী নিপা বেগম (৩০), দুই মেয়ে আশামনি (১১), প্রিয়া মনি (৪) এবং ভায়রার মেয়ে সুমাইয়া (১৪) ও শ্যালকের ছেলে আজিম (৭)। এ ঘটনায় গার্মেন্টস কর্মকর্তা জামাল সরদার বাদী হয়ে গত বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাত পর্যন্ত তাদের কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।
জামালের গ্রামের বাড়ি বরিশালের উজিরপুরের সানুহার গ্রামে। তার শ্বশুর বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাঞ্চনপুর এলাকায়।
গার্মেন্টস কর্মকর্তা জামাল সরদার জানান, তিনি গাজীপুরের শ্রীপুরে একটি পোশাক কারখানায় প্রোডাকাশন ম্যানেজার (পিএম) হিসেবে চাকরি করেন। প্রতি সপ্তাহের মতো গত বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় কাজ শেষে তিনি গাজীপুর থেকে সিদ্ধিরগঞ্জে স্ত্রী কন্যাদের কাছে আসেন। শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) ভোরে তিনি কর্মস্থলে চলে যান। যাওয়ার সময় তিনি স্ত্রীর হাতে বেতনের ৭০ হাজার টাকা দিয়ে যান। পরে রবিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌনে ১০টার পর থেকে স্ত্রী নিপার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পান। সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকালে তিনি তার ছোট ভাই খলিল সরদারকে ফোন করে তার বাসায় গিয়ে খোঁজ খবর নিতে বলেন। খলিল বাসায় গিয়ে দেখেন দরজায় তালা ঝুলানো। এ খবর পেয়ে জামাল সরদার তার আত্মীয়-স্বজনদের বাসায় খোঁজ নিয়ে তাদের কোনও সন্ধান পাননি। তার স্ত্রীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ রয়েছে। তিনি বিষয়টি তার শ্বশুর বাড়িতে জানালে তারা জানান তার স্ত্রী সেখানে যাননি।


সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শামীম হোসেন বলেন, ‘নিখোঁজ হওয়ার আগের দিন জামাল সরদারের সঙ্গে স্ত্রী নিপা বেগমের ঝগড়া হয়। পরদিন থেকে তারা নিখোঁজ। আমরা নিপার গ্রামের বাড়িসহ বিভিন্ন স্থানে খোঁজ-খবর নিচ্ছি।’


এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মীর শাহিন শাহ পারভেজ বলেন, ‘আমরা খোঁজ পেতে সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। জামাল সরদারের শ্বশুর বাড়িতেও কথা বলেছি। বিষয়টির তদন্ত চলছে।’

/বা.টি.

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য