Recents in Beach

Google Play App

বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে শাহ্ মোয়াজ্জেম ও গিয়াস কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
ক্যারিশমেটিক, দক্ষ, ত্যাগী ও জনপ্রিয় নেতাদের নিয়ে শীঘ্রই পূরণ হতে যাচ্ছে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারনী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির শূন্য তিনটি পদ। বিএনপির ৬ষ্ঠ কাউন্সিলের তিন বছর পরেও এই শূন্য তিনটি পদ এখনও খালি রয়েছে। জানা গেছে, বিএনপি কে সুসংগঠিত ও রাজপথে কার্যকর আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য ক্যারিশমেটিক, দক্ষ, ত্যাগী ও জনপ্রিয় নেতাদের নিয়ে উক্ত তিনটি শূন্য পদ পূরণের জন্য নীতিগতভাবে একমত হয়েছে বিএনপির হাইকমান্ড। বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই তিনটি শূন্য পদ পূরণের জন্য বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং কারাবন্দী বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ারও সবুজ সংকেত রয়েছে বলে জানান বিএনপির হাইকমান্ডের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র।
চলতি বছরের ২১ জুন স্থায়ী কমিটির ২টি শূন্য পদে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু’কে অন্তর্ভুক্ত করা হলেও আরো তিনটি শূন্য পদ ফাঁকা রয়েছে। উক্ত শূন্য তিনটি পদ প্রাপ্তির জন্য বিএনপির প্রায় ডজন খানিক নেতার নাম শোনা যাচ্ছে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল-বিএনপির বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান শাহ্ মোয়াজ্জেম হোসেন, আব্দুল্লাহ আল নোমান, মেজর (অব:) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী, এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, মো: শাহজান, শামছুজ্জামান দুদু, এডভোকেট আহমেদ আজম খান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান। তবে উক্ত তিনটি শূন্য পদের দুইটিতে পদ প্রাপ্তির দৌড়ে বেশ এগিয়ে আছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান প্রবীন দুই নেতা শাহ্ মোয়াজ্জেম হোসেন ও গিয়াস কাদের চৌধুরী। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির নীতি-নির্ধারক পর্যায়ের এক নেতা বলেন “ দুই ভাইস চেয়ারম্যান শাহ্ মোয়াজ্জেম হোসেন ও গিয়াস কাদের চৌধুরী কে দিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির দুইটি শূন্য পদ পূরণের ব্যাপারে বিএনপির হাইকমান্ড খুবই ইতিবাচক। বাকী পদটির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ এখনও প্রক্রিয়াধীন। তবে এই শূন্য তিনটি পদ পূরণের সিদ্ধান্ত গ্রহণের চূড়ান্ত ও সর্বময় ক্ষমতা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হাতে।” বিএনপির তৃণমূলের নেতা-কর্মী-সমর্থকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারাও চান খুব শীঘ্রই এই তিনটি শূন্য পদে দক্ষ, ত্যাগী, জনপ্রিয় ও ক্যারিশমেটিক নেতাদের অন্তর্ভুক্ত করা হউক। তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের সেই অপেক্ষার প্রহর কখন শেষ হয় তা দেখার প্রতীক্ষায় বিএনপির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলেই।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য