Recents in Beach

Google Play App

ওসির নিষ্ক্রিয়তায় গোল্লায় যাচ্ছে বাঁশখালীর আইনশৃঙ্খলা

এম আলমঃ
চট্টগ্রাম জেলার সর্ব দক্ষিণে সাগর-নদী ও পাহাড় বৈষ্ঠিত প্রায় ৫ লক্ষ মানুষের বসতির চরাঞ্চলীয় উপজেলা বাঁশখালী। এ উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের সবকটিতেই রয়েছে চিহ্নিত অপরাধী ও অস্ত্রবাজদের দৌরাত্ম্য। বিভিন্ন বাহিনীর নামে এরা সক্রিয় তাদের অপরাধ তৎপরতায়। মাঝেমধ্যে এ্যালিট ফোর্স র‍্যাব অভিযান দিয়ে অপরাধ চক্র দমনে প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখলেও পুরো উপজেলার নিরাপত্তায় যারা দায়িত্বে রয়েছে সেই পুলিশ বাহিনীর ভূমিকাই এখানে নিষ্ক্রিয়।

 অভিযোগ রয়েছে থানা পুলিশের বড় কর্তাটিই এসব অপরাধ চক্রের অভয়দাতা। তার প্রচ্ছন্ন ইঙ্গিতেই অপরাধী চক্র দাপিয়ে বেড়িয়ে এমন কোন অপরাধ নেই পুরো উপজেলায় করছেনা। চোরাচালান, মাদক ব্যবসা, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, জমির বিরোধ এমনকি পারিবারিক কলহেও এই পুলিশ কর্তা আপোষের বাহানায় নিজের স্বার্থ উদ্ধারে ব্যতিব্যস্ত। তার যোগদানের পর থেকেই পুরো উপজেলায় এখন চলছে অস্থির পরিস্থিতি। আসামী গ্রেপ্তারের নামে সামারী বাণিজ্য করাটা এই পুলিশ কর্তার স্বভাবজাত অভ্যাস হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঠুনকো অজুহাতে নিরীহ মানুষকে থানায় ধরে এনে মোটা অঙ্কের বাণিজ্য করছে এই থানারই কয়েকজন পুলিশ কর্তা। এসবের সব কিছুতেই রয়েছে থানার ওসি রেজাউল করিম মজুমদারের যোগসাজশ। তার প্রত্যক্ষ নির্দেশেই তার অধস্থন পুলিশ কর্তারা এভাবে মানুষকে থানায় ধরে এনে অত্যাচার নির্যাতনের পর চাঁদাবাজি করছে প্রতিনিয়ত। এসব অসাধু পুলিশ কর্তার হুমকি ধমকে ভীত সচ্ছল জনগন তাদের অবৈধ খায়েশ মিঠিয়ে মিথ্যা অভিযোগ থেকে নিষ্কৃতি পেলেও গরীব অসহায় মানুষের এখানে ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। বিনা দোষে হাজতে কিংবা কারাগারে যেতে হচ্ছে তাদের। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বাঁশখালীর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার গুরুভার এই ওসিকে দিলেও তিনি করছেন তার উল্টোটা। কথায় বলে, "যে যায় লঙ্কায়, সে হয় রাবণ"- বর্তমানে বাঁশখালীর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় ওসির ভূমিকাও তাই। অপরাধ প্রবণ বাঁশখালী জেলায় আইন-শৃঙ্খলার উন্নতিতো দূরের কথা তার যোগদানের পর থেকে অপরাধী চক্রের ভয়াবহতা বেড়েছে আরো দ্বিগুণ। তিনি স্বশস্ত্র অস্ত্রবাজদের দমনে কোন ভূমিকাই নিচ্ছেন না। উল্টো এসব চিহ্নিত দুষ্টচক্রের সাথে গভীর সখ্যতা গড়েছেন তিনি। এ কারণেই বাঁশখালীর গহীণ পাহাড়ে অপরাধী চক্রের আস্তানায় অভিযান দেন না তিনি। তার আষ্কারা পেয়েই অস্ত্রবাজ চক্র সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলেই পুরো বাঁশখালীর আইন-শৃঙ্খলা হাতের মুঠোয় নিয়ে নেয়। ডাকাতি, রাহাজানি, চুরি ও জলদস্যুতা ঘটাচ্ছে অহরহ। নিরীহ জন সাধারণকে আতঙ্কিত রাখতে এই অস্ত্রবাজ সন্ত্রাসী বাহিনী ফাঁকা গুলি এমনকি রকেট লাঞ্চারও আকাশে উড়ায়। অপরাধীর ডেরা খ্যত বাঁশখালীর এসব গহীণ পাহাড়ে যৌথ বাহিনীর কোন অভিযান প্রস্তুতির খবর পোঁছে যায় এসব অপরাধী চক্রের কাছে। থানার ওসি স্বয়ং কিংবা তার আস্থাভাজন পুলিশ কর্তাদের দিয়ে বিশেষ অভিযানের এ খবর সন্ত্রাসীদের পৌঁছিয়ে দেয়। পুলিশের আগাম সতর্কতা পেয়ে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা তল্পীতল্পা সহ গোপন স্থানে গাঁ ঢাকা দেয়। ফলে যৌথ বাহিনী অভিযান দিলেও তা নিস্ফল ও ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। শুধু কি তাই, এই ওসি তার অশোভন উক্তি, "মিথ্যাকে সত্য ও সত্যকে মিথ্যা" বানিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানীতেও বড্ড পটু। তার গ্যড়াঁকলে না পড়লে বুঝার উপায় নেই আসলে তিনি রক্ষক না ভক্ষক। এ ভাবেই আইনের উর্দি জড়িয়ে এই পুলিশ কর্তা তার নিজস্ব আইন জিইয়ে রেখেছে এ উপজেলায়। মোদ্দা কথা ওসি রেজাউলের মগের মুল্লুকের শাসন চলছে পুরো বাঁশখালী জুড়ে। তার এসব অপরাধ যাতে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে না পৌঁছায়, এসবের প্রস্তুতিও আছে তার। কথায় কথায় এই থানায় আর চাকুরী না করার অনিহা দেখায় বিভিন্ন মহলে। ওসি রেজাউল যোগদানের সাড়ে ৩ মাসের মধ্যে বাঁশখালীতে পৃথক কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। এসবের অভিযোগে থানায় মামলা জিডি হলেও অপরাধী গ্রেপ্তারে তিনি রয়েছে সাক্ষী গোপালের ভূমিকায়। এমনকি তিনি ঘটনার স্থির চিত্রকেও অস্বীকার করছেন পদে পদে। তার সাথে মধুর সম্পর্ক রয়েছে এমন অপরাধীদের সাত খুন মাফ করেন তিনি। সম্প্রতি গত ১৪ই জুন শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় বাঁশখালী উপজেলার দক্ষিণ সরল এলাকায় নুর মোহাম্মদ গ্রুপের শের আলী, আব্দু শুক্কুর, বশির, কবির ও সেলিম প্রকাশ্যে প্রতিপক্ষের উপর গুলি চালায়। সেদিন এলাকার আশরাফের পুত্র হোসেন (৩৫), আলীর পুত্র লোকমান (১২) ও খলিলের পুত্র ফরহাদ (১৮) গুলিবিদ্ধ হয়।

এ ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হলে শুরু হয় তোলপাড়। গোপনে ধারণকৃত ভিডিওতে ২ জনের হাতে অস্ত্র ও ৩ জনের হাতে কিরিচ নিয়ে প্রতিপক্ষের উপর হামলা চালানোর চেষ্টা কালে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের বাঁধা প্রদান করতে দেখা যায়। কিন্তু ওসি রেজাউল স্থির চিত্রে প্রদর্শিত সময়কে অন্য একটি দিনের ঘটনা বলে এড়িয়ে যায়। এমনকি ভিডিওর ঘটনাটি গত ১৪ই জুন শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় বাঁশখালী উপজেলার দক্ষিণ সরল এলাকার ঘটনাটি নয় দাবী করেন তিনি। এদিকে ঘটনার ভিডিও ধারণকারী ঘটনাস্থলের প্রত্যক্ষদর্শীরাও বলছেন, থানার ওসি বিষয়টি তদন্ত না করেই এমন একটি বাহাস মন্তব্য জুড়ে দিয়ে অপরাধীদের রক্ষার চেষ্টা করছেন। ওসির এ ভূমিকায় স্থানীয় সচেতন মহলও বিস্মিত। তারা বলছেন, ওসি নিশ্চয় ঘটনায় জড়িতদের কাছ থেকে সুবিধা পেয়ে তাদের পক্ষে সাফাই গেয়েছেন। তার আস্কারায় অপরাধীরা এখনো বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করছেন। এমনকি ঐ ঘটনায় আহত মামলার বাদীদের যুগপথ হুমকি-ধমকে আতঙ্কিত রেখেছেন এবং মামলা তুলে না নিলে প্রাণনাশেরও আস্ফালন করছে। অস্ত্রবাজ চক্রের এরূপ অপতৎপরতায় মামলার বাদীরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছেন। সবশেষে জানা গেছে, এ ঘটনায় সন্ধিগ্ধ বশিরকে অন্য একটি মামলায় গ্রেপ্তার করলেও বাকিরা এখনো রয়েছে ধরা ছোঁয়ার বাহিরে। ওসি রেজাউল দুষ্টকে দমন না করে তাদের অপরাধ কর্মকান্ডে কেনইবা সহযোগিতা দিচ্ছেন তা নিয়ে পুরো উপজেলায় চলছে তীর্যক জল্পনা। বাঁশখালীর আইন-শৃঙ্খলার উন্নতির বড় প্রতিপক্ষ এখন এই ওসি রেজাউল। উপজেলার অবনতিশীল শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে তাকে অতি দ্রুত অন্যত্র সরিয়ে দেয়া এখন সময়ের দাবী। এছাড়া শৃঙ্খলাবিধি পরিপন্থী কর্মকাণ্ডের জন্য তার বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থার দাবীও রেখেছেন সচেতন মহল।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ আফরুজুল হক টুটুল বলেন, আমি আগামীকাল বাঁশখালী থানায় যাচ্ছি। বিষয়টির ব্যাপারেও ব্যবস্থা নিচ্ছি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য