Recents in Beach

Google Play App

জিপসি রুদ্রের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র "ঢাল"

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে সফল ভাবে নিজের অস্তিত্বের জানান দিচ্ছে। নারীর ক্ষমতায়, ভ্রাতৃত্ববোধ, সমধিকার, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও আইটিসহ কতো বিষয়ে আমাদের সফলতার জয়জয়কার। এতো কিছুর পর সাম্প্রদায়িক রাজনীতি পিছন থেকে টেনে ধরতে চায় প্রায়ই।
এর মূলে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি। একাজ যারা করে তাদের বেশিরভাই এক বাক্যে ভন্ড এবং ধর্মব্যবসায়ী। কিন্তু সমাজে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা লোকগুলোর কদর বাড়ছে, তারা হুজুর বলে সম্মানিত হয় সমাজে। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা এই সম্মানিত লোকদের মূলত উদ্দেশ্য হইলো নিজেদের অপরাধ এবং অপকর্ম ঢাকা আর মুক্তিযুদ্ধের ধর্মনিরপেক্ষ অসাম্প্রদায়িক চেতনা এবং জাতির পিতার সুমহান আদর্শের বিরোধিতা করে ক্ষমতা দখল করা।
ধর্মকে তারা ছলে বলে কৌশলে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে ব্যাক্তিগত এবং রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করতে চায়। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা লোকদেরকে সমাজের সকলস্তর থেকে প্রতিহত কিংবা দমাইতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত মহান ধর্মনিরপেক্ষ অসাম্প্রদায়িক চেতনা এবং জাতির পিতার আদর্শ কায়েম করা সম্ভব না। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা লোকেরা ধর্মের দোহাই দিয়ে খুন করতে উৎসাহ জোগায়, বাল্যবিবাহকে জায়েজ করে, বহুবিবাহের জন্য জনমত গঠন করে, নারীদের দমিয়ে রাখে এবং জাতির পিতার আদর্শের বিরোধিতা করে।
তরুণ নির্মাতা জিপসি রুদ্র মনেপ্রাণে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে ধর্মীয় রাজনীতি জিন্দা রেখে ধর্মনিরপেক্ষ অসাম্প্রদায়িক চেতনা এবং জাতির পিতার আদর্শের স্বপ্নের সোনার বাঙলাদেশ গড়া সম্ভব না। জীবনের একটা বৃহৎ সময় ধরে সে চেষ্টা করছে আশেপাশে যারা আছে মানে দৈনিক যাদের সাথে তার মেশা হয় তাদের মগজে, মননে, বোধে, চিন্তায়, চেতনায় এবং আদর্শে ধর্মনিরপেক্ষ অসাম্প্রদায়িক চেতনা এবং জাতির পিতার আদর্শ জগ্রত করতে । যাতে উগ্রতা ও ধর্মন্ধতা বন্ধ হয়! ধর্ম শুধু মানুষের মনে লালনে পালনে থাকে। ধর্ম যাতে রাজনীতির ময়দানে না আসে।
তারই ধারাবাহিকতায় উগ্রধর্মান্ধ মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে “ঢাল” নামে একটা শর্টফিল্ম নির্মাণ করেছে সে। এই ফিল্মে অভিনয় করেছে, শিবু দত্ত, পুজাশ্রী পারিজাত, কবি আলী প্রয়াস, গল্পকার রাজীব রাহুল, কবি তাপস চক্রবর্তী, সাংবাদিক কিরণ শর্মা, সাংবাদিক সবুজ অরণ্য, সাইদুল ইসলাম ও গাজী গোফরান। শ্যুটিং হয়েছে, হামজারবাগ, সি আর বি, ডিসি হিল, চেরাগী পাহাড়সহ শহরের বিভিন্ন জায়গায়। শিগগির শিল্পকলায় প্রদর্শনী হবে ‘ঢাল’। আপনারা দেখতে পারেন । দেখার পরে যদি উগ্রধর্মান্ধ মৌলবাদীদের প্রতি আপনার ঘৃণা আসে তাহলে মনে হবে “ঢাল” বানানোর উদ্দেশ্য জিপসি রুদ্রের সফল ও সার্থক হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য